1. admin@ultimatenewsbd.com : adminsr : Admin Admin
  2. afridhasan.ahb@gmail.com : Shah Imon : Shah Imon
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০১:২২ পূর্বাহ্ন

কক্সবাজার হবে দেশের এক অর্থনৈতিক গেম-চেঞ্জার- পর্ব-১

নিজস্ব প্রতিবেদক, ultimatenewsbd.com
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১
  • ২৩৪

দেশজুড়ে চলছে কঠোর লকডাউন। কিন্তু, বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বের জেলা কক্সবাজারের ৭৭টি সাইটে এক মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে কাজ চলছে দিনরাত ২৪ ঘণ্টা।

সাগর ছোঁয়া রানওয়েতে দিন-রাত ২৪ ঘন্টাই উঠানামা করবে বিমান- এমন রূপে সাজছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যর লীলাভূমি কক্সবাজারের পর্যটনের বিকাশ ও গভীরসমুদ্র বন্দর কেন্দ্রিক বাণিজ্যের সম্ভাবনা কাজে লাগাতে ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ সারাদেশের সঙ্গে রেল যোগাযোগও স্থাপন করা হচ্ছে। রেল যোগাযোগ চালু হলে পর্যটন নগরীর সঙ্গে অবিরাম যোগাযোগ ব্যবস্থা শুধু সড়কপথের ওপর নির্ভর করবে না আর।

দেশের অর্থনীতির প্রধান গেম চেঞ্জার হিসেবে বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষা কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়িতে চলমান আছে গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের কাজ। চীনসহ বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক জোট আসিয়ানের সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার বাণিজ্যে মেলবন্ধনের নিয়ামক হয়ে উঠবে মাতারবাড়ি গভীর সমুদ্রবন্দর।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পর্যটন সম্ভাবনা কাজে লাগানোর পাশাপাশি সিঙ্গাপুর, হংকংসহ দ্বীপভিত্তিক অর্থনৈতিক হাবগুলোর আদলে গড়ে তুলতে কক্সবাজার ঘিরে এক মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে সরকার। আধুনিক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও রেল সংযোগ, অর্থনৈতিক অঞ্চল, বৈদ্যুতিক হাব গড়ে তোলার পাশাপাশি কক্সবাজারে গড়ে উঠছে দেশের প্রথম দ্বীপভিত্তিক পর্যটন পার্ক।

কক্সবাজার ঘিরে চলমান মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে বিমানবন্দর, রেললাইন, ১২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও এসপিএম প্রকল্প, সাবরাং ট্যুরিজম পার্ক ও অর্থনৈতিক অঞ্চল এক এক করে ২০২৩ সালের মধ্যে চালু হলে পাল্টে যাবে কক্সবাজারের চিত্র। মাতারবাড়ি গভীর সমুদ্রবন্দর চালু হলে মহেশখালী ইকোনমিক জোন দ্বীপভিত্তিক বাণিজ্যিক কেন্দ্রে রূপ নেবে।

কক্সবাজারের দূর্গম দ্বীপ মাতারবাড়িতে ৩৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতার চারটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র, ল্যান্ডবেইজ এলএনজি টার্মিনাল, চারটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা এবং ইন্সটলেশন অব সিঙ্গেল পয়েন্ট মুরিং (এসপিএম) উইথ ডাবল পাইপলাইন স্থাপনসহ অবকাঠামো উন্নয়নে বিপুল কর্মযজ্ঞ অঞ্চলটিকে ইতোমধ্যেই জাপান, চীন, ভারতসহ বিভিন্ন দেশের বিনিয়োগকারীদের জন্য আকষর্ণীয় কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

কক্সবাজারের পর্যটন কেন্দ্রিক বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা ও বিদেশি পর্যটকদের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন সুবিধা নিশ্চিত করতে সাবরাং, নাফ ও সোনাদীয়ায় তিনটি ট্যুরিজম পার্ক স্থাপনের কাজও চলছে। স্বাধীনতার পর অবকাঠামো ও বিনিয়োগে পিঁছিয়ে থাকা দক্ষিণ এশিয়ায় কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ স্থান কক্সবাজর জুড়ে প্রায় ২৫টি মেগা প্রকল্পসহ ৭৭টি বাস্তবায়নের কাজ চলছে, যা পাল্টে দেবে জেলার রূপচিত্র।

এসব প্রকল্পে বিনিয়োগের পরিমাণ তিন লাখ কোটি টাকারও বেশি, যা এক বছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে সরকারের মোট বরাদ্দ দেওয়া অর্থের দেড় গুণ। চলমান কোভিড মহামারীর স্থবিরতা কাটিয়ে বেশিরভাগ প্রকল্পেই দিন-রাত কাজ চলছে, ক্ষণে ক্ষণে কক্সবাজারের পাল্টে যাওয়ার চিত্র বোনা হচ্ছে।

বিপুল এই বিনিয়োগ দৃশ্যমান হতে দু-তিন বছর সময় লাগবে জানিয়ে বেজার সদ্য বিদায়ী নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, মহেশখালী বিচ্ছিন্ন দ্বীপ হওয়ায় একে দেশের মূল ভু-খন্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে জাতীয় মহাসড়ক নির্মাণ করা হচ্ছে। এই সড়ক চালু হলে এবং মাতারবাড়ি ১২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র জেনারেশনে এলে তখন দেশি-বিদেশি ইন্ডাস্ট্রিগুলো বিনিয়োগ কাজ শুরু করতে পারবে। এজন্য মহেশখালী-মাতারবাড়ী সমন্বিত অবকাঠামো উন্নয়ন কর্মসূচি (এমআইডিআই) কাজ করছে।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর
© আল্টিমেট কমিউনিকেশন লিমিটেডের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান   ***চলছে পরীক্ষামূলক কার্যক্রম***
Theme Customized BY LatestNews