1. admin@ultimatenewsbd.com : adminsr : Admin Admin
  2. afridhasan.ahb@gmail.com : Shah Imon : Shah Imon
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৩৬ অপরাহ্ন

এদেশের মালিক বঙ্গবন্ধু, এরপর বঙ্গবন্ধু কন্যা, এরপরেই মুক্তিযোদ্ধারা: তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, ultimatenewsbd.com
  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৩০

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। আমার জাতিসত্তা একটাই। প্রধানমন্ত্রীর জন্য জীবন দিতে একটুও চিন্তা করবো না। আমি চুরি, বাটপারি করি না। এদেশের মালিক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, এরপর বঙ্গবন্ধু কন্যা এরপরেই মুক্তিযোদ্ধারা। বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে জন্মেছি। বঙ্গবন্ধুর কথা বলে যাবো। আমি মাথা উঁচু করেই কথা বলবো।

সদ্য সরকারের পক্ষ থেকে নিবন্ধন পাওয়া একটি আইপি টিভির উদ্যোগে রবিবার (১৪ নভেম্বর) রাতে রাজধানীতে আয়োজিত এক আনন্দ অনুষ্ঠানের অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমার কথা বলার স্বাধীনতা দিয়েছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, এরপরে বঙ্গবন্ধু কন্যা। এরপরে আর কেউ নেই। খুনী জিয়াউর রহমান, খন্দকার মোশতাক দেশকে ধ্বংস করে দিয়েছে। এখান থেকে আমাদের বাঁচিয়েছেন, পুনর্জন্ম দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। এই বাংলায় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের কথা উচ্চারণ করার সাহস আর কারো নেই। আমি উপলব্ধি করি, আমার আবেগটা কোথায়, আমার জিদ কোথায়? কেউ কথা বলে না। সবাই দুর্নীতি লুটপাট করবো?

আর আমেরিকা, কানাডা, যুক্তরাজ্য, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরে সারা পৃথিবীতে বাড়ি না বানালে অনেক নেতাদের প্রেস্টিজ থাকে না। আমি তাদের ঘৃণা করি। লজ্জা হয়। এগুলা করার জন্য রাজনীতি করার দরকার নেই। চুরি, লুটপাট, দুর্নীতি করবেন, মানি লন্ডারিং করবেন এই দেশে এসব চলবে না। করতে দেয়া হবে না ইনশাআল্লাহ।

ডা. মুরাদ হাসান বলেন, এই বাংলাদেশ ৩০ লাখ শহীদের রক্তে কেনা। কারো গোলামী করার জন্য আমরা জন্মাইনি। গোলামী বঙ্গবন্ধু মানতেন না। এটা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর টাকা ছিলো না। ৩২ নাম্বার বাড়িও নিজে করেন নাই। তাকে চুরি, লুটপাট করতে হয়নি। আমাদের নেতারা দুই দিনের বৈরাগী। সব হাইব্রিড, চোর, বাটপার, টাউট আমরা ওদেরকে চিনি। বাংলার মাটিতে আসার পরে বঙ্গবন্ধুকন্যাকে ১৯৯৬ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে। বারবার মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়েও তিনি স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলেছেন। আমরা আরো ১০-১৫ বছর অপেক্ষা করতে পারবো। সময় আসলে প্রধানমন্ত্রী ওদেরকে লাথি মেরে বঙ্গোপসাগরে ফেলে দেবেন, এটাই আমার বিশ্বাস।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান যারা ব্লেসড তারা নৌকা পেয়েছে। আর যারা দুর্বল তারা বিদ্রোহী হয়ে যাচ্ছে। এটি খুবই বাজে উদাহরণ। ইউপি নির্বাচনের এই সহিংসতাগুলো মেনে নেয়া যায় না। ইউনিয়ন পর্যায়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এতো বরাদ্দ দেয়, তাই এটা লোভনীয় পদ হয়ে গেছে। আজকে ১২-১৩ বছরে মোটা চাকার গাড়ি ছাড়া আমাদের নেতাদের কয়জন ঘুরে?, ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদকও।

তিনি বলেন, আমরা বীরের জাতি। ৫৫ বছর ৪ মাসের জীবনে বঙ্গবন্ধু সব কথা বলে গেছেন। এসব কথা ফলো করলে আরো হাজার বছর চলবে। আমরা পাকিস্তানিদের একাত্তরে পরাজিত করতে পেরেছি। আওয়ামী লীগের নাম ধরে যারা লুটপাট করছে, দোকানদারি করছে এসব দোকানদারদের শায়েস্তা করতে হবে। অপেক্ষা করুন আমরা এটাও করতে পারবো।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধুকন্যার জন্য আমরা আজকে ব্র্যান্ডের কাপড় পরতে পারি । শেখ হাসিনা ক্ষমতায় না থাকলে সাধারণ ভোটাররা অত্যাচারিত হবে। এটাই সত্য এবং বাস্তবতা। বড় বড় নেতারা চুরি করে বিদেশে বাড়ি বানিয়েছে, পেপারে ছবি আসলেও তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হয় না। চুরি করলে দম থাকে না। চোর তো চোরই, দুর্নীতিবাজ তো দুর্নীতিবাজই। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে যারা বিদেশে পাচার করছে আমরা ওদেরকে চিনি।

বাংলাদেশকে বাহাত্তরের সংবিধানে ফিরিয়ে নেয়ার চেষ্টা অব্যাহত রাখবেন জানিয়ে মুরাদ হাসান বলেন, বঙ্গবন্ধু বিশ্ব নেতা ছিলেন। জাতির পিতা জীবন দিয়ে রক্ত দিয়ে যে সংবিধান রচনা করেছেন, সে সংবিধানেই আমরা একদিন ফিরবোই, এমনটাই প্রত্যাশা করেন প্রতিমন্ত্রী।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর
© আল্টিমেট কমিউনিকেশন লিমিটেডের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান   ***চলছে পরীক্ষামূলক কার্যক্রম***
Theme Customized BY LatestNews